1. dailysurjodoy24@gmail.com : admin2020 : TOWHID AHAMMED REZA
  2. towhid472@gmail.com : TOWHID AHAMMED REZA : TOWHID AHAMMED REZA
  3. sobhanhowlader155@gmail.com : Sobhan : Sobhan
কুড়িগ্রামে উজানের ঢলে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত
শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৩:৩৬ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::
কুমিল্লা জেলা আইনজীবী সমিতির ম্যানেজিং কমিটির নির্বাচন ৭ই মার্চ সাংবাদিক নয়নের উপর হামলার প্রতিবাদে সারাদেশে মানববন্ধন  নওগাঁর সাপাহারে ৫৯ জন ভূয়া দাখিল পরীক্ষার্থী বহিষ্কার, প্রতিষ্ঠান প্রধানদের বিরুদ্ধে মামলা ২১শে ফেব্রুয়ারি উপলক্ষে ভাষা শহীদদের স্বরনে শ্রদ্ধাঞ্জলি : মোঃ লিটন মাদবর বিল্লাল  ২১শে ফেব্রুয়ারি উপলক্ষে ভাষা শহীদদের স্বরনে শ্রদ্ধাঞ্জলি : আনোয়ার হোসেন আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ২১শে ফেব্রুয়ারি উপলক্ষে ভাষা শহীদদের স্বরনে শ্রদ্ধাঞ্জলি : হাসান মন্ডল  ঢাকা জেলা যুবলীগের আহ্বায়ক জি এস মিজানুর রহমান মিজান পতেঙ্গা থানা কে ম্যানেজ চলে সব অপরাধ রুখবে কে! যুবলীগ কর্মী তানভীরকে মিথ্যা মামলার ফাঁসানোর প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন চট্টগ্রাম শিক্ষা বোর্ড ঘেরাও, অনশন সহ কঠোর কর্মসূচির হুঁশিয়ারি দিলেন মুক্তিযোদ্ধা সংসদ 

কুড়িগ্রামে উজানের ঢলে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত

  • আপডেট টাইম : শুক্রবার, ১৯ জুন, ২০২০, ৩.০৫ পিএম
  • ২০৪ বার পঠিত

ডেস্কঃ

কুড়িগ্রামের ধরলা, তিস্তা, ব্রহ্মপুত্র, গঙ্গাধর ও দুধকুমারসহ সবকটি নদ-নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। যার প্রধান কারণ উজানের ঢল এবং টানা বৃষ্টিপাত। যার ফলশ্রুতিতে প্লাবিত হয়েছে নিম্নাঞ্চল। পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্র জানা যায় গত ২৪ ঘণ্টায় ধরলা নদীতে শূন্য দশমিক ৬৪ সেন্টিমিটার, দুধকুমার নদীতে শূন্য দশমিক ২৮ সেন্টিমিটার, ব্রহ্মপুত্র নদে শূন্য দশমিক ২৭ সেন্টিমিটার পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আরিফুল ইসলাম বলেন, পানি বাড়লেও আপাতত বিপদসীমা অতিক্রমের সম্ভাবনা নেই। এ মাসের শেষের দিকে ব্রহ্মপুত্র নদের পানি কিছুটা বৃদ্ধি পাবে। তবে বন্যার আশঙ্কা নেই। ভাঙ্গনপ্রবণ এলাকাগুলো মনিটরিং করা হচ্ছে। পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় নদীর অববাহিকার চরাঞ্চলের নিচু এলাকা প্লাবিত হতে শুরু করেছে। এ সব এলাকার গ্রামীণ সড়ক ডুবে গেছে। নিমজ্জিত হয়েছে পাট, ভুট্টা, সবজি ক্ষেত ও বীজতলা। নষ্ট হয়ে গেছে আউশ ধান ও কাউন। জেলার নাগেশ্বরী উপজেলার কচাকাটা ইউনিয়নের কাইয়ার চরের বাসিন্দা সামাদ মিয়াসহ অনেকে জানান, অতিবৃষ্টি আর উজান থেকে নেমে আসা ঢলে গঙ্গাধর আর দুধকুমার নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়ে বাড়ির চারদিক ভরে গেছে। চরাঞ্চলের কাউন এবং আউশ ধান পুরাটাই পানিতে তলিয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এ দিকে নারায়ণপুর ইউনিয়নের বেশ কয়েকটি নিম্নাঞ্চল পানিতে ডুব গেছে। এ ছাড়াও পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় কয়েকটি এলাকায় নদ-নদীর ভাঙ্গন বেড়েছে। অপরদিকে রাজারহাট উপজেলার বিদ্যানন্দইউনিয়নের কালিরমেলা গ্রামে তিস্তা নদীর ভাঙ্গনে বুধবার রাত থেকে বৃহস্পতিবার পর্যন্ত আহমদ আলী, আয়নাল হক, হবিবর রহমান, নিশিকান্তের ৪টি বসতবাড়ি ভেঙ্গে যায়। এ ছাড়াও অনেকের সুপারির বাগান, ফসলের জমিসহ ফলের বাগানের কিছু অংশ বিলীন হয়েছে। হুমকির মুখে পড়েছে কালিরমেলা সরকারি প্রাথমিক, কালিরমেলা বাজারসহ নদীর তীরবর্তী এলাকার বসতবাড়ি।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

Comments are closed.

© All rights reserved  2020 Daily Surjodoy
Theme Customized BY CreativeNews