1. dainiksurjodoy24@gmail.com : admin2020 : TOWHID AHAMMED REZA
  2. editor@surjodoy.com : Daily Surjodoy : Daily Surjodoy
দেশে ড্রোন প্রযুক্তির সমৃদ্ধি চাই
বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ১১:৫৫ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::
বৃহস্পতিবার সারাদেশে ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ ঘোষণা স্বামীর কর্মস্থল ইসলামী ব্যাংকের সামনে অনশনরত স্ত্রীর বিষপান, পুলিশ সদস্যদের ভূমিকায় উদ্বিগ্ন দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আমরা আন্দোলন থেকে সরে যাব না, কফিন ধরে শিক্ষার্থীদের শপথ সংস্কার আন্দোলন সাধারণ ছাত্রদের হাতে নেই, এর নেতৃত্বে এখন ছাত্রদল-ছাত্রশিবি : কাদের চট্টগ্রামে কোটা সংস্কার আন্দোলনে নিহতদের স্মরণে মহানগর বিএনপির গায়েবানা জানাজা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ দেশের বিভিন্ন স্থানে বিজিবি মোতায়েন অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় আজ পবিত্র আশুরা, কারবালার ‘শোকাবহ এবং হৃদয় বিদারক ঘটনাবহুল দিন চট্টগ্রামে কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের সঙ্গে যুবলীগ-ছাত্রলীগের সংঘর্ষে নিহত ৩ শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা বিবেচনায় স্কুল-কলেজ-পলিটেকনিক বন্ধ ঘোষণা

দেশে ড্রোন প্রযুক্তির সমৃদ্ধি চাই

  • আপডেট টাইম : সোমবার, ১ মে, ২০২৩, ১২.০০ এএম
  • ২২৮ বার পঠিত

ওমায়ের আহমেদ শাওন

 ড্রোন মূলত মনুষ্যবিহীন আকাশযান। এটি রোবোটিক সিস্টেম, ডিভাইস, কক্ষপথ, সেন্সর বা রিমোট কন্ট্রোল দ্বারা পরিচালিত হয়। ড্রোনের সাহায্যে অনেক কঠিন কাজ সহজেই করা যায়। ড্রোনের সাথে সংযুক্ত ক্যামেরা একটি নির্দিষ্ট এলাকার ছবি ধারণ করে। নাটক ও চলচ্চিত্র এখন ড্রোন ব্যবহার করে চিত্রায়িত হয়। ফটোগ্রাফাররা বায়বীয় ছবি তুলতে ইউএভি ব্যবহার করেন।

 কৃষি জমিতে সার ও কীটনাশক স্প্রে করতে বিশেষ ধরনের ড্রোন ব্যবহার করা হয়। জরুরী ওষুধ-ইঞ্জেকশন ও ভ্যাকসিনেশন, খাদ্য সরবরাহ এবং বিভিন্ন স্থানে বিভিন্ন পণ্য সরবরাহের জন্যও ড্রোন ব্যবহার করা হচ্ছে।

 ড্রোনকে “আনম্যানড এরিয়াল ভেহিকল” (UAV) বলা হয়। সামরিক অভিযান থেকে শুরু করে আধুনিক যোগাযোগ ব্যবস্থায় ড্রোনের ব্যবহার ক্রমাগত বাড়ছে।

 একটি সাধারণ (UAV) এবং অন্যটি সামরিক (UAV)। একটি সাধারণ UAV তে মূলত একটি ক্যামেরা, প্রপেলার এবং কিছু সেন্সর থাকে। যা তাকে আকাশে উড়তে এবং সঠিক পথে যেতে সাহায্য করে। আর মিলিটারি ইউএভিতে আছে ককপিট, স্পাই ক্যামেরা, লেজার, জিপিএস, সেন্সর, লাইটিং সেন্সর ইত্যাদি।

 একটি ড্রোন মূলত দুটি অংশ নিয়ে গঠিত – একটি ড্রোন নিজেই এবং অন্যটি এর নিয়ামক সিস্টেম। গ্রাউন্ড কন্ট্রোলার নিজেই কমান্ড দেয় এবং এটি স্যাটেলাইটের মাধ্যমে ড্রোনের কাছে যায়, ড্রোন এটি গ্রহণ করে এবং কমান্ড অনুযায়ী কাজ করে। আজ তুরস্ক, ইরান ও রাশিয়ার ড্রোন বিশ্বজুড়ে স্বীকৃত।

 অনেকে ড্রোনকে কোয়াডকপ্টার বলে। তবে একটি সাধারণ কোয়াড কপ্টার বা মিনি ড্রোন তৈরি করতে আপনার যা দরকার তা হল-

 1. BLDC মোটর 1400 KV

 2. ESC (ইলেক্ট্রনিক স্পিড কন্ট্রোল) BLDC মোটর নিয়ন্ত্রণ করতে।

 3. প্রপেলার বা পাখা

 4. APM শক ভাইব্রেশন শোষক

 5. কেভি 2.15 ফ্লাইট কন্ট্রোলার বোর্ড

 6. 11.1 ভোল্ট লিপো ব্যাটারি

 7. Lipo ব্যাটারি চার্জার

 8. কোয়াডকপ্টার ফ্রেম DJI F450

 9. ট্রান্সমিটার এবং রিসিভার (FLYSKY FS-16 AFHDS TX-RX2.4G)

 10. FPV গগলস বা ডিসপ্লে।

 ড্রোন কিভাবে কাজ করে:

 একটি প্রপেলার বা ফ্যান একটি ড্রোনের একটি ডিসি মোটরের সাথে সংযুক্ত থাকে। যার RPM গতি অবশ্যই যোগ্য হতে হবে। ড্রোন বাতাসকে কাজে লাগিয়ে উড়তে সক্ষম। যদি ড্রোনের সাথে চারটি প্রপেলার সংযুক্ত থাকে তবে দুটি ঘড়ির কাঁটার দিকে এবং দুটি ঘড়ির বিপরীতে বা কাউন্টার ক্লক ঘোরানো উচিত। এবং যদি প্রপেলারটি একাধিক মটরের সাথে সংযুক্ত থাকে, তবে অর্ধেক প্রপেলার ঘড়ির কাঁটার দিকে এবং বাকি প্রপেলারটি আনুপাতিক হারে ঘড়ির কাঁটার দিকে ঘোরাতে হবে। অন্যথায় ড্রোনটি সঠিক বা নির্দেশিত গতিপথে চালিত হতে পারে না।

 ড্রোনটিকে মাটি থেকে তুলতে হলে নীচের বাতাসে চাপ প্রয়োগ করতে হবে, তারপর যদি মাটির উপরে বায়ু স্থান শূন্য হয় তবে ড্রোনটি সেখানে অবস্থান নেবে। সামনের দিকে যেতে হলে সামনের মোটরের গতি কমাতে হবে এবং পেছনের মোটরের গতি বাড়াতে হবে। আপনি যদি পিছনের দিকে যেতে চান তবে আপনাকে পিছনের মোটরগুলির গতি কমাতে হবে এবং সামনের মোটরগুলির গতি বাড়াতে হবে। এভাবে ডান-বামে বা উপরে-নিচ করার সময় মোটরের গতি কমানো বা বাড়ানোর কারণে ড্রোনটি সঠিকভাবে চালানো সম্ভব।

 কোনো বস্তুকে বাতাসে ভাসতে বা উড়তে রাখতে হলে বাতাসের বল বস্তুর ওজনের দ্বিগুণ হতে হবে। আর বায়ুমণ্ডলের ওই অংশের বাতাসকে বাতাসের ওপর দ্বিগুণ চাপ প্রয়োগ করে হালকা করতে হবে। তাহলে সেই বস্তু বা জিনিস সহজেই বাতাসে ভেসে উঠতে বা উড়তে পারে। কৌণিক ভরবেগ, কৌণিক ভরবেগ বা কৌণিক ভরবেগ এবং টর্ক সম্পর্কে আরও জানলে বিষয়টি পরিষ্কার হবে।

 ড্রোনের সাথে সোলার প্যানেল সিস্টেম যুক্ত থাকলে ব্যাটারি রিচার্জ করার প্রয়োজন হবে না। বায়ু শক্তি প্যানেল ব্যবহার করে ড্রোনটিকে আরও শক্তিশালী করাও সম্ভব।

 বাংলাদেশে ড্রোন ক্যামেরা বা ড্রোনের ব্যবহার সিভিল এভিয়েশন অথরিটি (বেবিচক) “ড্রোন রেজিস্ট্রেশন অ্যান্ড ফ্লাইট পলিসি 2020”-এর মাধ্যমে গেজেট আকারে নির্দিষ্ট ও স্পষ্ট করেছে। সেখান থেকে ড্রোনের বৈধ ব্যবহারের বিস্তারিত জানা যাবে। বিভিন্ন ধরনের প্রযুক্তিগত ড্রোন তৈরিতে সরকারের সুদৃষ্টি প্রয়োজন এবং ড্রোন প্রযুক্তির ওপর ভিত্তি করে স্মার্ট বাংলাদেশই আগামী প্রজন্মের শ্রেষ্ঠত্ব।

লেখক :  উদ্ভাবক ও বিজ্ঞান গবেষক। 

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

Comments are closed.

© All rights reserved  2020 Daily Surjodoy
Theme Customized BY CreativeNews