1. dailysurjodoy24@gmail.com : admin2020 : TOWHID AHAMMED REZA
  2. editor@dailysurjodoy.com : Daily Surjodoy : Daily Surjodoy
  3. towhid472@gmail.com : Towhid Ahmmed Rezas : Towhid Ahmmed Rezas
পানি সংকট বাঁচাতে হলে আগে প্রাকৃতিক সম্পদ বাঁচাতে হবে; পরিবেশ পরিদর্শক আব্দুস সালাম
রবিবার, ০৯ মে ২০২১, ০৩:৩৮ পূর্বাহ্ন

পানি সংকট বাঁচাতে হলে আগে প্রাকৃতিক সম্পদ বাঁচাতে হবে; পরিবেশ পরিদর্শক আব্দুস সালাম

  • আপডেট টাইম : শনিবার, ১ মে, ২০২১, ৭.৪৭ পিএম
  • ৬৫ বার পঠিত
আকাশ মার্মা মংসিং বান্দরবানঃ
বান্দরবানের থানচির গহীন অরণ্যে থানচি সড়কসহ ঝিড়ি-ঝর্ণা, ছড়াগুলো থেকে পাথর উত্তোলন চলছে। তা প্রতিরোধে বলিপাড়া ইউনিয়নের ডাকছৈ পাড়া মাংগই ঝিড়িতে অভিযানকালে পরিবেশ অধিদপ্তর বান্দরবান জেলা পরিদর্শক (জুনিয়র ক্যামিস্ট) মোঃ আবদুস সালাম বলেন, প্রাকৃতিক সম্পদ এভাবে নষ্ট করতে দেয়া হবে না, পানির সংকট বাঁচাতে হলে আগে প্রাকৃতিক সম্পদকে বাঁচাতে হবে। পাথর উত্তোলনকারী চোরদের সাথে কোন আপোষ নয়। তারা দেশের প্রাকৃতিক সম্পদ ধ্বংসকারী, পাথর উত্তোলন কারীদের বিরূদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। পাহাড়ের গ্রামাঞ্চলে বসবাসরত সচেতন সমাজের ব্যক্তিবর্গ ও সুশীল সমাজ পাথর উত্তোলনের প্রতিবাদে সমন্বয়ের মাধ্যমে সোচ্চার হতে হবে। পাথর খেকোদের ধরিয়ে দিতে পাথর উত্তোলননের খবর পেলেই আমাদের জানাবেন, প্রাকৃতিক সম্পদ বাঁচাতে পরিবেশ অধিদপ্তর বান্দরবান অফিস সব সময় পাশে আছি, থাকবে।
বান্দরবানের থানচি উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় পাহাড়ের ঝর্ণা -ঝিড়ি -ছড়া গুলোতে পাথর উত্তোলণের কারণে পানির শুকিয়ে গেছে। পাওয়া যাচ্ছে না খাবার পানিও। বাধ্য হয়ে কয়েক কিলোমিটার দুর থেকে কাঁধে ও মাথায় করে নিয়ে আসতে হচ্ছে খাবার কিংবা ব্যবহারের যোগ্য বিশুদ্ধ পানি।
এদিকে প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্যর্পূণ এক একটা ইউনিয়ন এলাকায় দর্শণীয় স্থান রেমাক্রি মুখ, ঙাঁফাখুম, ঙাক্ষ্যং খাল, আমিয়াখুম, বেলাখুম, সাতভাইখুমসহ আশে পাশে ঝিড়িগুলো হতে পাথর উত্তোলণ চলমান রয়েছে। সদর ইউনিয়ন ৭নং ওয়ার্ড এলাকা কাইতং পাড়া, বোডিং পাড়া, কংহ্লা পাড়া, চমি পাড়া, লাকপাইক্ষ্যং পাড়া, হাব্রু হেডম্যান পাড়া আশপাশে এলাকার ঝিড়িগুলো শুকিয়ে যাচ্ছে। পাথর উত্তোলণের কারণে এই সমস্ত পাড়ারের ওপর বিরুপ প্রভাব পড়েছে। আইলমারা ঝিড়ি, বালু ঝিড়ি, মাংগই ঝিড়ি, শিলা ঝিড়ি ও নাইক্ষ্যং ঝিড়ির, মগংগ্রী ঝিড়িসহ বিভিন্ন এলাকায় ঝিড়ি-ঝর্ণা থেকে পাথর উত্তোলনের কারণে ইতোমধ্যে পানির অভাবে পার্শ্ববর্তী অনিল পাড়া, কমলা বাগান মারমা পাড়া, কমলা বাগান ত্রিপুরা পাড়া, কমলা বাগান চাকমা পাড়া, ডাকছৈ পাড়া, কমান্ডার সাখয় পাড়া, মেরোওয়া পাড়া ও হৈয়তং খুমি পাড়াসহ আশেপাশে গ্রামগুলোতে  জনসাধারণের মাঝে দুর্বিষহ হয়ে উঠছে। পাথর খেকোদের হাত থেকে রেহাই পাইনি চয়ক্ষ্যং ঝিড়ি, সালোকক্যা ঝিড়ি, থাংদয় ঝিড়ি, পদ্ম ঝিড়িসহ শতাধিক ঝিড়িগুলো। প্রাকৃতিকভাবে সৃষ্ট প্রাকৃতিক সম্পদ পানির উৎস্যের একমাত্র উপাদান ঝিড়ি পাথর আর নেই। পাহাড়ে জীব বৈচিত্র হারাতে বসেছে। থানচির প্রাকৃতিক পরিবেশ হুমকিতে পড়েছে । এভাবে চলতে থাকলে অদুর ভবিষ্যৎতে পাহাড় হবে মরুভূমি।
কিছু সংখ্যক পার্শ্ববর্তী লামা, চকরিয়া, সাতকানিয়া, আমিরাবাদ ও দোহাজারি এলাকার অসাধু ব্যবসায়ীসহ উপজেলার স্থানীয় প্রভাবশালী সিন্ডিকেট ব্যবসায়ী চক্র উপজেলা প্রশাসনকে বৃদ্ধাঙুলি দেখিয়ে কোন প্রকার বাধা ছাড়াই ঝিড়ি-ঝর্ণা-ছড়াগুলো থেকে পাথর উত্তোলন করে দিবাত্রি পাচার করেই চলেছে। স্থানীয়রা পাথর উত্তোলণের বাধা দিলেও প্রভাবশালী সিন্ডিকেট ব্যবসায়ী চক্রের হুমকিতে পাথর উত্তোলন বন্ধ করা যাচ্ছে না। বছরে সিজনের অক্টোবর মাস হতে শুরু করে জুন মাস পর্যন্ত চলে পাথর উত্তোলন।
অন্যদিকে পাহাড়ের ওপর আম, কাজুবাদাম, লিচু, কলাসহ বিভিন্ন প্রজাতির ফলের বাগানে কৃষকরা পানির অভাবে বাগানে প্রয়োজনীয় স্প্রে করতে পারছেন না। যার দরুণ এলাকার মানুষের আয় উপার্জনও দিন দিন কমে এসেছে। পাহাড়ে খেতে খাওয়ার কৃষক শ্রেণি সাধারণ মানুষের জীবন যাত্রা ওপর চরম দুর্বিষহ হয়ে উঠছে।
উপজেলায় বিভিন্ন এলাকার ঝিড়ি- ঝর্ণাগুলোতে পাথর উত্তোলনের কারণে বিভিন্ন প্রজাতির শামুক, ছোট মাছ, ছোট চিংড়ি ও কাকড়াগুলো হারিয়ে বিলুপ্ত হয়ে গেছে। পাহাড়ে ঝর্ণা -ঝিড়ি -ছড়ার প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্য ও সম্পদ হারিয়ে হাহাকার। প্রায় ঝর্ণা-ঝিড়ি-ছড়া গুলো ইতোমধ্যে শুকিয়ে তিব্র পানির সংকট দেখা দিয়েছে। যার ফলে চরম ভোগান্তিতে পড়েছে এলাকার খেটে খাওয়ার কৃষক শ্রেণির সাধারণ মানুষ।
এলাকার সচেতন সমাজ মনে করেন, প্রশাসন ও পরিবেশ অধিদপ্তর বারবার অভিযান পরিচালনা করে জড়িমানা করে বসে থাকলে পাথর উত্তোলন করার বন্ধ হবে না। প্রকৃতিকে বাঁচাতে পর্যটন এলাকা হিসাবে এই উপজেলাকে স্থায়ীভাবে পাথর উত্তোলণ বন্ধ করার দরকার। তাই প্রশাসন ও পরিবেশ অধিদপ্তর এবং স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের সম্বনয়ের প্রকৃতিকে বাঁচাতে স্থায়ীভাবে পাথর উত্তোলণ বন্ধ করার সিদ্ধান্ত গ্রহণের সচেতন  সমাজ নাগরিকগণের একমাত্র দাবি।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved  2020 DailySurjodoy.Com
Theme Customized BY CreativeNews